নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

রাজধানীর তুরাগে কিশোর গ্যাং গ্রুপের চাহিদা মাফিক চাঁদা না দেওয়ায় এক রিকশা গ্যারেজ মালিক ও তার কর্মচারীর উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে । এতে গ্যারেজ মালিক আবদুল বারেক ও তার রিকশা মিস্ত্রী আলম ফকির গুরুতর আহত হয়েছেন । রবিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) রাত ৮টার দিকে তুরাগের কামারপাড়া খায়েরটেক জৈনক আবদুল বারেকের রিকশার গ্যারেজে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে । জানাযায়, একই এলাকার জৈনক সিরাজ মিয়ার ছেলে কিশোর গ্যাং গ্রুপের প্রধান দলনেতা চাঁদাবাজ মাসুদ রানা ওরফে পিচ্চি মাসুদ কয়েকদিন যাবত বিভিন্ন রিকশার গ্যারেজ ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে মোটা অংকের চাঁদাবাজি করে আসছে । এরই ধারাবাহিকতায় মোটা অংকের চাঁদা দাবী করে বসেন রিকশার গ্যারেজ মালিক আবদুল বারেকের নিকট । কিন্তু বর্তমানে ব্যবসা মন্দা হওয়ায় তিনি তার চাহিদা মাফিক চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন । এতে মাসুদ রানা ওরফে পিচ্চি মাসুদ ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে । পরে ২০/৩০জন কিশোর গ্যাং গ্রুপের সদস্যদের একত্রিত করে গ্যারেজে এসে হামলা চালায় এবং গ্যারেজ মালিক আবদুল বারেককে মারতে মারতে উঠিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে । এসময় গ্যারেজের রিকশা মিস্ত্রী আলম ফকির তাকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসলে তাকেও চাকু ও চাপাতি দিয়ে উপর্যুপরি কুপিয়ে মারাত্মক আহত করে তার কাছে থাকা ১৭ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় । তাদের ডাক চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে ঘটনাস্থল থেকে চলে যায় উক্ত কিশোর গ্যাং বাহিনী । পরে হামলার খবর পেয়ে গ্যারেজ মালিক আবদুল বারেকের আত্মীয়স্বজন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আশপাশের লোকজনের সহয়তায় তাদের উদ্ধার করে দ্রুত নিকটতম টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান । আহত আলম ফকিরের পেটে, মাথায় ও কপালে ১৭টি সেলাই দেওয়া হয়েছে । এদিকে গ্যারেজ মালিক আহত আবদুল বারেক প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে ১/ মাসুদ রানা ওরফে পিচ্চি মাসুদ (২৫), ২/ জাকির (৩৫), ৩/ হৃদয় (২০), ৪/ চান্দু (২০), ৫/ ফারুক (১৮), ৫/ উজ্জ্বল (২৩) সহ অজ্ঞাতনামা ২০-৩০ জনের বিরুদ্ধে রাতেই তুরাগ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দ্বায়ের করেন । অভিযোগ পাওয়ার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পুলিশ । তবে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি তুরাগ থানা পুলিশ । অভিযুক্ত মাসুদ রানা ওরফে পিচ্চি মাসুদের বিরুদ্ধে ধর্ষণসহ বিভিন্ন অপরাধে একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানান এলাকার একাধিক ব্যবসায়ী ও বাসিন্দাগন । গ্যারেজ মালিক আবদুল বারেকের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত সাপেক্ষে সর্বাত্মক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তুরাগ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মোস্তফা আনোয়ার ।

আপনি যে খবরগুলো মিস করেছেন