মোঃ ওবায়েদুর রহমান সাইদ, শরীয়তপুর প্রতিনিধিঃ

শরীয়তপুর নড়িয়া উপজেলায় চান্দনী বাবার মৃত্যুর খবর শুনে সোলাইমান সরদার নামে এক পথ চাড়ি আজ দুপুর ১ টা ৪৫ মিনিটে সময় সোলাইমান সরদার আনুমানিক ৩৫ বয়স বছর হবে। ভোজেশ্বর হতে মটর সাইকেলের চালক পিছন থেকে আসা সোলাইমান সরদারে উপরে উঠাইয়া দেয়। গঠনা স্থলে সে মৃত্যু বরণ করেন, মৃত্যু ব্যক্তি বা ঐ সোলাইমান সরদার রাস্তার পাশ দিয়া পায়ে হাটছিল। এতে ঘটনা স্থলে আগাতের কারনে মাথার মগজ বাহির হয়ে যাওয়ায় সাথে সাথে মৃত্যু বরন করেন।
তার পিতার নাম সোহরাব সরদার,তার পিতা বধক্যজনিক কারনে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে দুপুর ১টা সময় মৃত্যু বরন করেন, তার পিতা সোহবার সরদারের মৃত্যু খরব পেয়ে রাস্তার দিয়া আটো রিক্সা না পেয়ে হাটতে শুরু করেন, সোলাইমান সরদার শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে আসবে। এমনত অবস্থায় ভোজেশ্বর হতে দুর্তগতিতে একটি মটরসাইকেল পিছন হতে আগাত করে,সাথে সাথে সোলাইমান সরদার মৃত্যু বরণ করেন, জানা যায় সোহবার ভোজেশ্বর ইউনিয়ন ৫নং ওয়ার্ডে চান্দনী গ্রামে নদীর পার তার বাড়ি, সোলাইমান সরদার দুবাই প্রবাসী, গত দুই আড়াই মাস হল সে দুবাই হতে দেশে এসেছেন,সোলাইমান সরদার তারা দুই ভাই দুই বোন, সোলাইমান ভাই, বোনের মধ্যে সবার বড়, ইতিপুর্বে মৃত্যু ব্যক্তি গত ৮ মাস আগে বাড়ি থাকিয়া আবার দুবাই চলে যান,সে বিবাহীত জিবনে তার স্ত্রীর ৬ মাসে অন্তসত্তা, কি হৃদয় বিবাক মানুষের মৃত্যু, বাবা মৃত্যু খবর শুনে এখন সেও লাশ, শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে বাবা লাশ বাহির করে আর ছেলেকে হাসপাতাল ডুমঘরে নিয়ে যায় এই হল মানুষে নির্মম পরিহাস ভাগ্যে লেখা যায় নি খন্ডন, এই ভাবে কে কখন না ফিরা দেশে চলে যাইতে হবে,। এইদিকে মটরসাইকেল চালক সোলাইমানকে আগাত করে দুর্ত্য মটর সাইকেল নিয়ে পালাইয়ে আসে শরীয়তপুর, নাদিম মার্কেটে, মটরসাইকেল মেরামত করার জন্য চলে আসে। এলাকার বাসি শরীয়তপুর মর্ডেল থানায় পুলিশকে খবর দিলে সাথে সাথে গঠনা স্থলে গিয়ে তারা পৌছায় এবং লাশ ময়না তদন্তে জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতার নিয়ে আসে,এই দিকে পুলিশ মটরসাইকেল চাললকে শরীয়তপুর হতে আটক করে থানা নিয়ে যায়, যেহেতু এই ঘটনা নড়িয়া থানায় আওতায় হওয়ায় ,পালং মর্ডেল থানার পুলিশ,নড়িয়া থানা নিয়ে আসামীকে হস্তান্তর করেন, এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মটর চালকে নাম জানা যায় নি, তবে এত টুকু জানা গেছে তার বাড়ি নড়িয়া থানায় ভোজেশ্বর এলাকায়

এই দিকে মোটোফোনে যোগা যোগ করিলে নড়িয়া থানার ওসির হাফিজুর রহমান বলেন আমরা মোটরসাইকেল চালককে আটক করেছি।
নিহতের আপন কেউ এসে নাই,আমি অভিযোগ করলে থানায় মামলা হবে।তবে মমলার প্রস্তুতি চলছে।

আপনি যে খবরগুলো মিস করেছেন