রাজবাড়ী প্রতিনিধিঃ
রাজবাড়ীতে বিভিন্ন সময়ে হারানো ফোন উদ্ধার করে প্রকৃত মালিককে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

২৭শে মে সোমবার  পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের কনফারেন্স রুমে পুলিশ সুপার জি,এম,আবুল কালাম আজাদ পিপিএম সভাপতিত্বে, রাজবাড়ী জেলা ০৫টি থানার জিডির সূত্র ধরে ফোন উদ্ধার করে বুঝিয়ে দেন রাজবাড়ী জেলা পুলিশ।

এর মধ্যে রাজবাড়ী সদর থানার জিডি ২৬টি,  গোয়ালন্দ ঘাট থানায় জিডি-১৪টি, পাংশা মডেল থানায় জিডি-২৫টি, কালুখালী থানায় জিডি-১৪টি,  বালিয়াকান্দি থানায় জিডি-১৩টি, সব মিলিয়ে মোট-৯২টি হারানো মোবাইল জিডির সূত্র ধরে রাজবাড়ী জেলা সহ ভিন্ন জেলা হতে উদ্ধার পূবক যাচাই করে প্রকৃত মালিকদের হাতে হস্তান্তর করেন।

এ সময় পুলিশ সুপার জি, এম, আবুল কালাম আজাদ পিপিএম বলেন, রাজবাড়ী জেলা একটি ছোট জেলা এ জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিত যথেষ্ঠ ভালো। এছাড়াও প্রান্তিক মানুষের মোবাইগুলো উদ্ধার ও সাইবার ক্রাইম সংক্রান্তে খুব দায়িত্ব সহকারে করা হয়, মোবাইল হারানো বা বিকাশের মাধ্যমে টাকা নিয়ে যাওয়া ও একজনের পারসোনাল ছবি পোষ্ট করে তাকে ব্লাক মেইল করা ভিকটিমের ভিতরে যে মানষিক কষ্ট সেই কষ্টটা দুর করার জন্য আমরা আত্নরিক ভাবে চেষ্টা করি। মোবাইল, বিকাশ প্রতারনা, ফেসবুক হ্যাক করে টাকা নিয়ে যাওয়া ও ফেসবুকে আপত্তিকর ছবি পোষ্ট মুছে ফেলার পর ভিকটিমের মুখের হাসি, সেটি আমাদেরকে অর্থে আরও কাজে অনুপ্রানীত করে। এ কাজটি আমরা করে যাব। রাজবাড়ী জেলার প্রতিটি থানায় মোবাইল হারানো জিডি, বিকাশ প্রতারনা ও ফেসবুক সংক্রান্তে জিডি হয়। সেই জিডির প্রেক্ষিতে সাইবার ক্রাইম মনিটরিং সেল এর একটি চৌকস টিম উক্ত মোবাইলগুলো উদ্ধার, বিকাশ প্রতারনা, ফেসবুক হ্যাক সহ অন্যান্য সাইবার অপরাধ সংম্পর্কে সর্বদা নজরদারী করে থাকে। হারানো মোবাইল প্রকৃত মালিক পেয়ে সকলে আবেগ প্রবন হয়ে পড়েন এবং পুলিশের প্রতি আস্থা ছিল তা আরো বহুগুনে বেড়ে গেল। রাজবাড়ী জেলা পুলিশ প্রশাসনকে আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ জানিয়ে তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদ্য পদন্নোতি প্রাপ্ত পুলিশ সুপার ) রেজাউল করীম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এন্ড অপস) মুকিত সরকার , অতিরিক্ত পুলিশ সুপার  (সদর সার্কেল) ইফতেখারুজ্জামান, রাজবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইফতেখারুল আলম প্রধান সহ জেলা পুলিশের উদর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

আপনি যে খবরগুলো মিস করেছেন