তানোর রাজশাহী প্রতিনিধি; জাকির হোসেন- টুটুল।

তলা বিহীন ঝুড়ির মতই কমিটি ছাড়া চলছে তানোর উপজেলা ছাত্রলীগ।
প্রাই দেড় দশক ক্ষমতাসীন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ভাতৃপ্রতিম সংগঠন (বাংলাদেশ ছাত্র লীগ) তানোর উপজেলা শাখায় নেই কোনো কমিটি।

অভিভাবহীন হয়ে আস্তকূড়ে পড়ে রয়েছে তানোর এর বিভিন্ন শিক্ষাঙ্গনের আগামী দিনের রাষ্ট্র পরিচালার দায়িত্বে আশার মত দেশের নতুন প্রজন্ম।

আদৌও কমিটি গঠন করা হবে কি না তা নিয়ে রাজনৈতিক সচতেন মহলে রয়েছে সংশয়। তারা তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলো গতিশীল করতে অবিলম্বে নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত করার আহ্বান জানিয়েছেন, বিভিন্ন শিক্ষাঙ্গনে রাজনৈতিক সচেতন শিক্ষার্থীগণ।

তথ্য সূত্রে জানা যায়, গত ২০১৭ সানের জুলাই মাসে প্রেস কাউন্সিলের মাধ্যমে তানোর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এসকে সানী ও সম্পাদক সারোয়ার হোসেন শাওনকে নির্বাচিত করা হয়। ওই কমিটির সভাপতি এস.কে সানী শুরু থেকেই সংগঠনের কোন কার্যক্রমে অংশগ্রহন করতেন না। এই কারনে তানোর উপজেলার ৭টি ইউনিয় ও ২টি পৌরসভা ও ৮১টি ওয়ার্ডে ছাত্র লীগের সদস্যদের সময়োপযোগী কোন রাজনৈতিক কার্যক্রম অংশগ্রহণ করতে দেখা যাই নাই।

অভিবাবক হীন অচলপ্রায় ছাত্রলীগের কমিটি টির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার কারনে গত ২০- মে ২০২২ইং প্রেস কাউন্সিলের মাধ্যমে তৎকালীন রাজশাহী জেলা ছাত্র লীগের সভাপতি সাকিবুল ইসলাম রানা ও জাকির হোসেন তানোর উপজেলা ছাত্র লীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষনা করেন।
বর্তমানে প্রায় একবছর পেরিয়ে গেলেও তানোর উপজেলা ছাত্র লীগের নতুন কমিটি গঠিত হয় নাই। বর্তমানে কমিটি ও অভিভাবকহীন রয়েছে তানোর উপজেলা ছাত্রলীগ।

অভিভাবকহীন তানোর উপজেলা ছাত্রলীগ প্রসঙ্গে, তানোর উপজেলার সাবেক ছাত্র লীগ, যুবলীগ নেতা ও সাবেক উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক; প্রভাষক, রাকিবুল সরকার (পাপুল) বার্তা-১০ এর প্রতিনিধি; জাকির হোসেন টুটুল এর স্বাক্ষাৎকারে বলেন: বর্তমান তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, আবুল কালাম আজাদ সরকার, (প্রদীপ সরকার) ব্যতিত বর্তমান তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুব লীগ, কৃষক লীগের কারো’ রই, ছাত্র লীগ করা ব্যাক গ্রাউন্ড নাই, ফলে এক সময়ে দলের চরম দুঃসময়ে রাজপথ কাঁপান, হাজারো মুজিব সেনা তৈরির প্লাটফর্ম, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া সংগঠন ছাত্র লীগ আজ ছন্নছাড়া। জতির চরম সংকটে আশার আলোক বর্তিকা হয়ে উঠা এ সংগঠনের ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে, ১৯৫৪ সালের যুক্ত ফ্রন্ট নির্বাচনে, ১৯৬৬ সালের ৬ দফা আন্দোলনে ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুথানে সর্বোপরি ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে রয়েছে অসামান্য ভূমিকা।

দালাল- হাইব্রিড এর চরম দৌরাত্ম্যে আজ কেউ বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নিয়ে পড়াশোনা করেনা, কেবল ডিপ টিউবয়েল বানিজ্য, নিয়োগ বানিজ্য, কমিশন বানিজ্য কিভাবে করা যায়, তা নিয়ে অহর্নিশ গবেষণা করে। যদিও শ্রদ্ধেয় প্রদীপ সরকারের এ ক্ষেত্রে আন্তরিকতার অভাব নেই, তবে সম্ভবত তিনি হাতে পাচ্ছেন না।

অতীতে যুবলীগ, আওয়ামী লীগ নেতা বানানোর আগে দেখা হত সে ছাত্র লীগ করে এসেছে কি না, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারন করে কিনা। আর এখন দেখা হয় সে সম্মানিত নীতিভ্রষ্ট মহোদয় গনের চাকর কিনা। যা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া সংগঠন ছাত্র লীগের আদর্শিক ভিত্তিমূলকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। আর তাই বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য উত্তরসূরী হিসাবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু তনয়া দেশরত্ন শেখ হাসিনার প্রতি বিনীত আবেদন এ বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহন করে ছাত্র লীগের মত একটি ঐতিহাসিক সংগঠন কে রক্ষা করার যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহন করা হোক।

আপনি যে খবরগুলো মিস করেছেন