নুর হোসেন- চট্টগ্রাম জেলা প্রতিনিধিঃ

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) দুই থানা এলাকায় প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে ‘লটারি’। প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত নগরের পতেঙ্গা ও ইপিজেড এলাকায় অলিতেগলিতে বিক্রি হচ্ছে এসব লটারির টিকেট।

রাতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ড্র অনুষ্ঠান। সেখানে দেওয়া হচ্ছে ৪৭টি পুরস্কার। শতাধিক প্রচার গাড়ির মাধ্যমে বিক্রি হচ্ছে টিকেট। প্রতি টিকেটের মূল্য ২০ টাকা। প্রতিটি গাড়িতে বিক্রি হচ্ছে কমপক্ষে ৫০০ টিকেট। এভাবে দৈনিক ১০ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে সংঘবদ্ধ একটি চক্র।একমাস আগে পতেঙ্গা থানার পূর্ব কাটগড় কন্ট্রোল মোড়ে শুরু হওয়া হস্তবস্ত্র কুটির শিল্প মেলায় প্রথমে প্রবেশ টিকেটের উপর লটারি থাকলেও গত ৮দিন ধরে গোটা এলাকায় বিক্রি হচ্ছে লটারির কুপন।সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মেলার শুরু থেকে প্রবেশ কুপনের উপর লটারিতে পুরস্কার দেয় মেলা কর্তৃপক্ষ। কিন্ত গত ৮ দিন ধরে হঠাৎ শতাধিক প্রচার গাড়িতে করে পতেঙ্গা-ইপিজেডের অলিতেগলিতে বিক্রি শুরু হলে হাজার হাজার কুপন কিনছেন নিম্ন আয়ের লোকজন।স্থানীয় যুবক সাইফ আলতাফ তার ফেসবুক আইডি থেকে এ বিষয়ে লিখেছেন, মেলার নামে লটারি নামক জুয়া বন্ধ করুন। পতেঙ্গা কন্ট্রোল মোড় এলাকায় চলছে হস্তবস্ত্র কুটির শিল্প মেলা। কিছুদিন মেলা ঠিকভাবে চললেও এখন শুরু হয়েছে লটারি নামক জুয়া। এমনিতেই মানুষের অভাবের শেষ নেই। তার উপর মরার উপর ক্ষরার ঘা। দিনমজুর, রিকশার ড্রাইভার, গার্মেন্টস কর্মী থেকে শুরু করে এলাকার যুবক, এমনকি ছাত্র/ছাত্রী পর্যন্ত সবাই মেতে উঠেছে এই লটারি নামক খেলায়। এসব আমাদের সমাজে ভাল কিছু বয়ে আনবেনা। এই লটারি সব শেষ করে আমাদের চরম অর্থ সংকটের দিকে নিয়ে যাবে। এই লটারি বন্ধের জোর দাবি জানাচ্ছি। শহিদুল ইসলাম নামের আরেক যুবক বলেন, পতেঙ্গা- ইপিজেড গার্মেন্টস অধ্যুষিত এলাকা। এরা সবাই নিম্ন আয়ের এবং অল্প শিক্ষিত মানুষ। এটাকে কাজে লাগিয়ে কিছু চক্র প্রায় এই এলাকায় মেলা ও লটারির নামে জুয়ার আয়োজন করে। আকর্ষনীয় পুরস্কারের লোভ দেখিয়ে হাতিয়ে নেয় কোটি কোটি টাকা। চক্রগুলো প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই এসব করছে। গত বছর এলিট হলে একটি চক্র মাসব্যাপি মেলা ও লটারির নামে জুয়ার আসর বসায়। কন্ট্রোল মোড়ে মেলাটি বসিয়েছে জাবেদ ও মাসুদ নামের দুই যুবক। শুরুর দিকে এই মেলায় প্রবেশ কুপনের উপর লটারি থাকলেও গত ৮ দিন ধরে তারা এসব কুপন পতেঙ্গা ইপিজেডের অলিতেগলিতে বিক্রি করছে। এ নিয়ে এলাকার অনেক মানুষ ফেসবুকে লেখালেখি করছে। তারপরও প্রশাসন কোন উদ্যোগ নিচ্ছেনা।খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পতেঙ্গা থানার পূর্ব কাটগড় এলাকার কন্ট্রোল মোড়ে বিমান বাহিনীর খালী জায়গায় ‘হস্তবস্ত্র কুটির শিল্প মেলা’ নামের একটি মেলা করার অনুমতি নেয় স্থানীয় জাবেদ ও মাসুদ নামের দুই যুবক। প্রায় একমাস ধরে চলেছে এ মেলা।এ বিষয়ে মেলা কমিটির মো. মাসুদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মেলায় আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। ১০০ গাড়িতে কুপন বিক্রির বিষয়টি মিথ্যা। আমরা কয়েকটি গাড়ি দিয়ে এসব কুপন বিক্রি করছি। আপনারা বললে এখনই বন্ধ করে দিচ্ছি।পতেঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আফতাব হোসেন বলেন, লটারি বিক্রির বিষয়টি আমি জানিনা। আমার জানামতে তারা প্রবেশ কুপনে লটারি করে। গাড়ি দিয়ে কুপন বিক্রির বিষয়টি আমি খবর নিয়ে দেখছি।সিএমপির উপ পুলিশ কমিশনার (বন্দর) শাকিলা সুলতানা বলেন, মেলাটি বিমান বাহিনী করছে বলে আমি জানি। প্রচার গাড়িতে করে লটারি বিক্রির বিষয়ে আমি খবর নিচ্ছি। বিষয়টি সত্য হলে বন্ধ করতে এখনই ওসিকে নির্দেশ দিচ্ছি। সিএমপির উপ পুলিশ কমিশনার (সিটিএসবি) মুঞ্জুর মোর্শেদ বলেন, পতেঙ্গায় মেলার অনুমোদন নিয়েছে কি-না আমার খোঁজ নিয়ে দেখতে হবে। মেলা অনুমোদন ও লটারি বিষয়টি খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নিচ্ছি।

আপনি যে খবরগুলো মিস করেছেন